কাদের মির্জার বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে কেন্দ্রে কোম্পানীগঞ্জের নেতারা

0
11

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে কেন্দ্রে এসেছেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে ‘ধৈর্য্য ধরার’ সমাধান নিয়ে ফিরেছেন তারা।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নেতারা এ তথ্য জানান।

জানা গেছে, শনিবার রাতে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আসেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। তারা বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের সঙ্গে বৈঠক করেন। এসময় আওয়ামী লীগের উপদফতর সম্পাদক সায়েম খান ও নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুল আউয়াল শামীম উপস্থিত ছিলেন।

নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রকে নোয়াখালীর বর্তমান অবস্থা অবগত করেন। পাশাপাশি একটি অভিযোগপত্রও দেন। সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন তাদের কথা শোনেন, অভিযোগপত্র নেন এবং তাদের ধৈর্য্য ধরার পরামর্শ দেন।

এদিকে, রাতেই ফেসবুক লাইভে এসে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা দাবি করেছেন, বৈঠক থেকে সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন তাকে ফোন করেছিলেন। তিনি অভিযোগকারীদের সঙ্গে সমঝোতা করতে রাজি নন জানিয়ে ফোন কেটে দিয়েছেন।

বৈঠকের ব্যাপারে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল বলেন, ‘বৈঠকে আমাদের আভ্যন্তরীণ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা হয়েছে।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, নোয়াখালী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার নেতারা এসেছেন, তাদের বিভিন্ন অভিযোগ শুনেছি। লিখিত একটি অভিযোগও দিয়েছেন। পরে অন্য পক্ষের অভিযোগ শুনে দলের ঊর্ধ্বতন নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে অভিযোগ নিয়ে যারা এসেছেন, আমি আপাতত তাদেরকে ধৈর্য ধারণ করার অনুরোধ জানিয়েছি।