কারাবন্দিকে ইনজেকশন পুশ করে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ

0
15

চট্টগ্রাম কারাগারে বন্দি এক ব্যক্তিকে বৈদ্যুতিক শক ও বিষাক্ত ইনজেকশন দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে জেল সুপার, জেলার ও কারা হাসপাতালের সার্জনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ভুক্তভোগীর স্ত্রী ঝর্ণা রাণী দেবনাথ। এ ঘটনায় পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। _বৃহস্পতিবার (০৪ মার্চ) সকালে মহানগর দায়রা জজ আশফাকুর রহমানের আদালতে এ মামলা করা হয়।পরিবারের সদস্যরা জানান, ২০১৮ সালে রুপম কান্তি দেবনাথের বিরুদ্ধে চেক প্রতারণার মামলা করেন রতন ভট্টাচার্য। ২০২০ সালের ১৫ ডিসেম্বর প্রতারণা মামলায় রুপন কান্তিকে গ্রেফতার করা হয়। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি হঠাৎ করেই গুরুতর আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। জেলখানা থেকে রুপমের স্ত্রীকে জানানো হয় তার স্বামী গুরুতর অসুস্থ।রুপমের স্ত্রী ঝর্না রানী দেবনাথ বলেন, ‘আমাকে কারাগার থেকে জানানো হয়, আপনার স্বামী গুরুতর অসুস্থ, ওকে মেডিকেলের নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। আপনি উকিলের মাধ্যমে একটি দরখাস্ত পাঠান।’এদিকে, রুপম কান্তিকে বৈদ্যুতিক শক ও বিষাক্ত ইনজেকশন দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে জেল সুপার, জেলার ও কারা হাসপাতালের সার্জনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে করা মামলা আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।বাদীপক্ষের আইনজীবী রাজীব দাশ বলেন, ‘আদালত প্রত্যেকটা পিটিশন নিয়েছেন। বাদীর নির্দেশ করা জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন। বাদী সবকিছু সুস্পষ্টভাবে বলেছেন। আদালত বিষয়গুলো ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করে আদেশ দেবেন বলে আমাদেরকে জানিয়েছেন।তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন জেল সুপার।চট্টগ্রাম কারাগারের জেল সুপার সফিকুল ইসলাম খান বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা কিছু বলব না। শুধু এই টুকুই বলব, ইলেক্ট্রিক্যাল শক এবং বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করার অস্তিত্ব কোনো কারাগারে আছে বলে আমার জানা নেই।’গত ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে এখনও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কারাগারে নির্যাতিত আসামি রুপম।