নৌকার মাঝি হতে পারল না নোমান এম এ সালাম

0
12

জোটের সমীকরণে আসন ভাগাভাগিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েও শেষ পর্যন্ত বাদ পড়েছেন চট্টগ্রামে দুইটি আসনের প্রার্থীরা। চট্টগ্রামে মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টিকে ২টি আসন ছাড় দিয়ে নিজেদের প্রার্থীদের প্রত্যাহার করেছে আওয়ামী লীগ।

ফলে এখন চট্টগ্রামে ১৬টি আসনের মধ্যে দুইটি আসনে নৌকা পেয়েও শেষ পর্যন্ত কপাল পুড়ল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের।
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সালাম ও চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী, চান্দগাঁও এবং পাঁচলাইশ আংশিক) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ।

শেষ পর্যন্ত জোট সঙ্গীদের এই দুই আসন ছেড়ে দিতে হয়েছে দলটি।
রোববার (১৭ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

চট্টগ্রামে জোট থেকে মনোননয়ন পাওয়া প্রার্থীরা হলেন, চট্টগ্রাম-৫ আসনের বর্তমান সাংসদ ও জাতীয় পার্টি (জাপা) সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও চট্টগ্রাম-৮ আসনে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠ।
চট্টগ্রামে জোট থেকে মনোননয়ন পাওয়া সোলায়মান আলম শেঠ বলেন, আমার দলের প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ চট্টগ্রামের উন্নয়ন করেছেন।

আমি নিজেও র্দীঘদিন ধরে জাতীয় পার্টির চট্টগ্রামের রাজনীতিতে সক্রিয়। আমি নির্বাচিত হয়ে অবহেলিত বোয়ালখালী মানুষের পাশে থাকতে চাই। আমাকে নির্বাচিত করলে সবসময় এই সংসদীয় আসনের মানুষের সুখ-দুঃখে পাশে পাবে। আগামী ৭ জানুয়ারি জনগণ আমাকে হতাশ করবে না।