বইপ্রেমী মানুষকে বঞ্চিত না করতেই বইমেলা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

0
10

বইয়ের আনন্দ থেকে যাতে কেউ বঞ্চিত না হয়, সে জন্যই করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও বইমেলা আয়োজন করা হয়েছে। তবে ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় মেলায় আসতে হলে সবাইকে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বিকেলে প্রথমবারের মতো গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে অমর একুশে বইমেলা উদ্বোধন করে এই কথা বলেন তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ১০ ক্যাটাগরিতে সাহিত্য অঙ্গনের ১০ বিশিষ্টজনের হাতে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ২০২০, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তুলে দেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী। পাশাপাশি, বঙ্গবন্ধু রচিত ও বাংলা একাডেমি প্রকাশিত আমার দেখা নয়াচীন বইয়ের ইংরেজি অনুবাদ নিউ চায়না নাইন্টিন ফিফটি-টু গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন শেখ হাসিনা।প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান যারা অস্বীকার করে, তাদের আবারও নতুন করে ইতিহাস জানতে হবে।প্রধানমন্ত্রী অনুবাদ সাহিত্যের ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, নিজের মায়ের ভাষাকে জানা যেমন দরকার তেমনি অন্য ভাষা জানাটাও দরকার সে জন্য অনুবাদ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেজন্য বাংলা একাডেমিকে সবময়ই আমি অনুরোধ করেছি-অন্যান্য দেশের সাহিত্য যেন আমরা জানতে পারি। কারণ, সহিত্যের মধ্য দিয়েই মানুষের জীবনচর্চা জানা যায়, সংস্কৃতি ও ইতিহাস জানা যায়।বইপ্রেমী মানুষের কথা চিন্তা করেই প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও মেলা আয়োজন করা হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই।প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বইমেলায় ঘুরে ঘুরে বই দেখার ভিতরে যে আনন্দ, সে আনন্দ থেকে সবাই যাতে বঞ্চিত না হয় সেই চিন্তাটা করেই কিন্তু এই বই মেলাটা করা হচ্ছে। তবে আমি অনুরোধ করব সবাইকে যারা বই মেলায় আসবেন সবাই স্বাস্থ্য-সুরক্ষা মেনে চলবেন।’ভাষা ও সংস্কৃতির বিকাশে অনুবাদ সাহিত্যে আরো উদ্যোগী হতে বাংলা একাডেমির প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।