বাবুনগরীরা কমিটি ঘোষণা করুক তারপর আমাদের সিদ্ধান্ত: আনাস মাদানি

0
9

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, চট্টগ্রাম :: হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফির মৃত্যুর পর সংগঠনটির আমির নির্বাচন নিয়ে টানাপোড়েন সৃষ্টি হয়। টানাপোড়েনের মধ্যে সংগঠনটির আমির হিসেবে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী নির্বাচিত হলেও শফিপন্থিরা তা মেনে নেয়নি। ফলে সমর্থকদের বিভেদ দেখা দেয়।

এই বিভক্তির মধ্যেই স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরকে কেন্দ্র করে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা দেশব্যাপী জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলন করেন। মোদিকে কেন্দ্র করে জ্বালাও-পোড়াও ও ২০১৩ সালের শাপলা চত্বরের ঘটনায় দলটির শীর্ষ নেতাদের একে একে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর হেফাজতে ইসলামের আমির জুনাইদ বাবুনগরী গত ২৫ এপ্রিল সংগঠনটি বিলুপ্তি করে আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন। কওমিভিত্তিক সংগঠনটির বিভেদের কোনো সমাধান না এলেও ফের সোমবার (০৭ জুন) রাজধানীর খিলগাঁও চৌরাস্তা মাখজানুল উলুম মাদরাসা কার্যালয়ে নতুন কমিটি ঘোষণা করতে যাচ্ছেন বাবুনগরীপন্থীরা।

হেফাজতে ইসলামের নতুন কমিটি ঘোষণার বিষয়ে সোমবার আনাস মাদানী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, উনারা কমিটি ঘোষণা করুক। এরপর আমাদের বক্তব্য আমরা দেবো।

হেফাজতে ইসলামের শফীপন্থি হিসেবে পরিচিত মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী বলেন, হেফাজতে ইসলামের নামে তারা যে কমিটি ঘোষণা করতে যাচ্ছেন, সেটিকে গত ২ জুন আমরা সংবাদ সম্মেলনে পকেট কমিটি বলেছি। এটাই এখনও আমাদের বক্তব্য।

তিনি দাবি করেন, উনাদের (বাবুনগরীপন্থি) কমিটি মানেনি এবং মানছে না এমন অনেকেই আছে। তাদের ৫ সদস্যদের আহ্বায়ক কমিটি অনেকেই মানেনি।