ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ফাইনাল দেখতে মাঠে ফিফা প্রেসিডেন্ট

0
8

আগেই নির্ধারিত ছিল, ঐতিহাসিক মারাকানা স্টেডিয়ামে বসে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচটি দেখবেন ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। সেই মোতাবেক কোপা আমেরিকার ফাইনাল শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ আগেই মাঠে উপস্থিত ফিফা প্রেসিডেন্ট।

কোপা আমেরিকার আয়োজক সংগঠন কনমেবলের প্রধান আলেজান্দ্রো ডমিঙ্গেজ এবং ব্রাজিলে নিযুক্ত আর্জেন্টাইন অ্যাম্বাসেডর ড্যানিয়েল সিওলির সঙ্গে মাঠে প্রবেশ করেছেন ইনফান্তিনো। সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করেছেন সিওলি।

দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী দেশের ফাইনালকে ঘিরে আগেই ৫-০ গোলে জেতার কথা বলে রেখেছেন ব্রাজিল প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। তবে তার ঠিক বিপরীতটাই বলেছেন আর্জেন্টিনার অ্যাম্বাসেডর সিওলি। তিনি নিশ্চিত, ফাইনাল ম্যাচটি আর্জেন্টিনাই জিতবে।

মাঠে প্রবেশের আগে সিওলি বলেছেন, ‘না না! আমি নিশ্চিত আমরাই (আর্জেন্টিনা) জিতব। টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই বলেছি যে এই দল ম্যাচ বাই ম্যাচ আরও ভালো করবে। সেমিফাইনালে আমরা দেখেছি কীভাবে দলগত পারফরম্যান্স করল তারা। এটা এমন একটা দল যারা সংঘবদ্ধ। বলসোনারোর সকল উত্তর মাঠেই পাওয়া যাবে।’

শুধু ফিফা প্রেসিডেন্টই নন, ফাইনাল ম্যাচটি দেখতে মাঠে হাজির হয়েছেন দুই দলের প্রায় হাজার পাঁচেক দর্শক। যারা ম্যাচ শুরুর প্রায় দুই ঘণ্টা আগে থেকেই গ্যালারিতে নিজেদের জায়গা দখল করেছেন প্রিয় দলের হয়ে গলা ফাটানোর জন্য।

এদিকে ফাইনালে ম্যাচে খেলা নিয়ে অনেক অনিশ্চয়তা ছিল আর্জেন্টিনা দলের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার ক্রিশ্চিয়ান রোমেরোর। অবশেষে তাকে নিয়েই সাজানো হয়েছে একাদশ। লাউতারো মার্টিনেজকে মাঝে রেখে ৪-৩-৩ ফর্মেশনে একাদশ সাজিয়েছেন স্কালোনি।

অন্যদিকে সেমিফাইনালের মতো এ ম্যাচেও ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে একাদশ সাজিয়েছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। তবে সেমিফাইনালে স্ট্রাইকার পজিশনে ছিলেন রিচার্লিসন। ফাইনালে নেইমারকে স্ট্রাইকার পজিশনে দিয়ে একই ফর্মেশনে দল সাজিয়েছেন ব্রাজিল কোচ।

আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশ: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, গ্যাব্রিয়েল মন্টিয়েল, ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, নিকোলাস ওটামেন্ডি, মার্কস আকুনা, রদ্রিগো ডি পল, লেয়ান্দ্র পারেদেস, জিওভানি লো সেলসো, লাউতারো মার্টিনেজ, লিওনেল মেসি ও অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া।

ব্রাজিলের শুরুর একাদশ: এডারসন মোরায়েস, দানিলো, মার্কুইনহোস, থিয়াগো সিলভা, রেনাল লোদি, ক্যাসেমিরো, লুকাস পাকুয়েতা, ফ্রেড, এভারটন রিভেইরো, নেইমার ও রিচার্লিসন।