চকবাজার চেকপোস্টে সাংবাদিককে নাজেহাল করলেন এসআই হাফিজুর!

0
50

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ::চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার এলাকার একটি চেকপোস্টে সাংবাদিকের সাথে কতিপয় পুলিশের অশালীন ব্যবহার, সাংবাদিক এবং পত্রিকা নিয়ে তাচ্ছিল্য প্রকাশ, জোর করে পকেট থেকে আইডি কার্ড নেয়া এবং সাংবাদিক শোনার পরপরই মামলা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

গত ১৯ জানুয়ারী মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার এলাকার মেরন সান স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে দৈনিক আমার বার্তা’র চট্টগ্রাম ব্যুরো চীফ টিপু দাশের সাথে এই কতিপয় পুলিশ ন্যাক্কারজনক এই আচরণ করেছেন।

জানা গেছে, গত কয়েকদিন ধরে নগরীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন স্পটে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি করছে পুলিশ। এধরণের একটি চেকপোস্ট দায়িত্ব পালন করছিলো চকবাজার এলাকায়।

মঙ্গলবার বিকেলে ওই এলাকা দিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে আসার পথে সিগন্যাল নে চকবাজার থানার এসআই হাফিজুর। মোটরসাইকেল দাঁড় করানোর পরপরই তিনি অসৌজন্যমূলক আচরণ শুরু করেন।

তিনি এসময় সাংবাকিতা এবং বিভিন্ন পত্রিকা নিয়ে অশালীন মন্তব্য এবং রূঢ় আচরণ করতে থাকেন। মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার এবং ডিজিটাল কার্ড দেখানোর পরও তিনি সার্জেন্ট নাজমুলকে আরেক জায়গা থেকে ডেকে আনেন মামলা দেয়ার জন্য।

সাংবাদিক টিপু অভিযোগ করে বলেন, এসআই হাফিজুর এতো আগ্রাসী আচরণ করছিলেন যে, ঘটনার আকস্মিকতায় আমি হতভম্ব হয়ে পড়ি। তিনি আমার শার্টের পকেট থেকে জোর করে পত্রিকার আইডি কার্ড নিয়ে নেন এবং হাসি-ঠাট্টা করতে থাকেন। এব্যাপারে ওই এলাকার দায়িত্বরত পিআই প্রশান্তকে অবগত করা হলে তিনিও অশালীন মন্তব্য করেন। পিআই প্রশান্ত এসময় বলেন, সাংবাদিকরা পারেন খালি পুলিশের…(অশ্রাব্য শব্দ).. বাঁশ দিতে।

টিপু দাশ আরও বলেন, পিআই প্রশান্ত, এসআই হাফিজুর এবং সার্জেন্ট নাজমুল সাংবাকিদের ওপর প্রচন্ড ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তাঁদের ক্ষোভের ধরণ সত্যিই উদ্বেগজনক। এব্যাপারে পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ এবং সাংবাদিক নেতৃবৃন্দকে অবগত করা হয়েছে বলে জানান সাংবাদিক টিপু দাশ।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পিআই প্রশান্ত যখন চকবাজার এলাকার টিআই ছিলেন, তখন তাঁর নামে অসংখ্য নাম্বারবিহীন সিএনজি নগরীতে চলাচল করতো। সেসময় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে এসকল বিষয়ে বিভিন্ন সময় সংবাদ প্রকাশ হয়েছিলো।

জানা যায়, একই ঘটনা ঘটে ২নং গেইট এলাকায় সরকারী নিবন্ধন পাওয়া নিউজ পোর্টাল চট্টগ্রাম নিউজ এর স্টাফ রিপোর্টার শাহরিয়ার মুনির জিসান এর সাথে।

জানতে চাইলে চকবাজার জোনের পিআই প্রশান্ত কুমার দাস বলেন, ঘটনার সময় আমি একটু অদূরে ছিলাম। আমি ঘটনায় ছিলাম না। তবে এসআই হাফিজুর রহমানের সাথে সাংবাদিক টিপুর একটু ভুল বুঝাবুঝি হয়। যা খুবই দুখজনক।

এসআই হাফিজুর রহমানের মোবাইলে রিং করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পাবার পর তিনি রং নাম্বার বলে ফোন লাইন কেটে দেন। পরবর্তী অনেকবার রিং করা হলেও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সিএমপি দক্ষিণ চকবাজার জোনের সহকারি পুলিশ কমিশনার (এসি) রাইসুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’